বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:২৬ পূর্বাহ্ন

গাজীখালী নদী রক্ষায় পরিবেশ অধিদপ্তরের সহযোগীতা চান চেয়ারম্যান রমজান আলী

জনশক্তি ডেক্স:
  • আপডেট সময়: বৃহস্পতিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪ ৮:০৯ am

জসিম উদ্দিন সরকার, সিঙ্গাইর (মানিকগঞ্জ):
মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর উপজেলার তালেবপুর ইউনিয়নের কাশিমনগর ইরতা দিয়ে বয়েচলা গাজিখালি নদী তীরের বিভিন্ন স্থানে দাঁড়ালেই চোখে পড়ে ভয়াবহ দূষণের কবলে পড়া গাজীখালীর করুণ চিত্র। নদীটি রক্ষায় পরিবেশ অধিদপ্তরের হস্তক্ষেপ চান সিঙ্গাইর উপজেলার তালেবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রমজান আলী।

তিনি বলেন, নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে ধামরাই উপজেলার কিছু কল-কারখানা বর্জ এই নদীতে ফেলছে। যার ফলে দূষিত হয়েছে নদীর পানি ও অনাবাদি হবার পরিক্রমা আশে পাশে ফসলী জমিজমাও। ইতিপূর্বে বিভিন্ন সভায় বিষয়টি তিনি সিঙ্গাইর উপজেলাকে অবহিত করেছেন বলেও জানান।

তিনি আরো বলেন, আগেও এ বিষয়ে পত্র-পত্রিকায় অনেক লেখালেখি হয়েছে কিন্তু তাতেও কেউ এবিষয়ে কোন উদ্যোগ গ্রহন করেনি।

চেয়ারম্যান বলেন, ধামরাই ও সিঙ্গাইর দুইটি পাশাপাশি উপজেলা হলেও জেলা ও প্রশাসন আলাদা, গাজিখালী নদী নিয়ে ঢাকা ও মানিকগঞ্জ জেলাকে যৌথ ভাবে কাজ করতে হবে। তবে বিষয়টি নিয়ে যদি পরিবেশ অধিদপ্তর উদ্যোগ গ্রহন করেন, তাহলে হয়তো সহজেই বিষয়টি সবার নজরে আসবে। আমি আশা করব মানিকগঞ্জ পরিবেশ অধিদপ্তর মৃত প্রায় গাজীখালী নদীকে বাচাঁতে এগিয়ে আসবে।

এছাড়াও চেয়ারম্যান রমজান আলী গাজীখালী নদী ও নদীর আশেপাশে ফসলী জমি এবং নদী তীরের মানুষদের রক্ষায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। সেই সাথে পরিবেশ অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট সকলের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

বাংলাদেশের উত্তর-কেন্দ্রীয় অঞ্চলের মানিকগঞ্জ ও ঢাকা জেলায় অবস্থিত গাজীখালী নদী। একসময়ের মত্স্য ভাণ্ডার হিসেবে পরিচিত গাজীখালী নদী আজ প্রায় মত্স্যশূন্য। ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে এই নদীর পানি। দূষিত ও পচা, বিষাক্ত পানির দুর্গন্ধে টিকতে পারছেন না নদী তীরের মানুষ। আক্রান্ত হচ্ছেন নানা অসুখে বিসুখে।

মানিকগঞ্জ জেলার সদর, সাটুরিয়া, সিঙ্গাইর ও ঢাকার ধামরাই উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে চলা এক সময়ের ক্ষরস্রোতা নদী ধলেশ্বরী ও গাজীখালি। একসময় এই জায়গা দিয়ে বড়সড় পালতোলা নৌকাসহ বিশাল জাহাজ চলাচল করতো। তবে কালের পরিক্রমায় তা এখন রূপ নিয়েছে মরা নদীতে।

আজকে সেই নদী এমন এক অবস্থায় চলে গেছে ধামরাই উপজেলার কিছু ইন্ডাস্ট্রিয়াল বর্জের কারণে। এখন এই নদীতে গোসল করা তো দূরের কথা নদীর পাশ দিয়ে হেঁটে যাওয়া যায় না। নদীর পাশে যাদের বাড়ি তারা এই নদীর দুর্গন্ধে ঘুমাইতে পারে না। এই নদী দূষণের কারণে মানুষের অসুখ-বিসুখ বিভিন্ন সমস্যা দেখা দিচ্ছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, গাজীখালী নদীর পানি দূষণের জন্য দায়ী ঢাকা জেলার ধামরাই উপজেলায় গড়ে ওঠা কয়েকটি বড় বড় শিল্প কারখানা। সিঙ্গাইরের পার্শ্ববর্তী উপজেলা ধামরাইয়ে অবস্থিত বৃহত ফ্যাক্টরীর বর্জ্য গাজীখালী নদীকে মারাত্মকভাবে দূষিত করছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

তারা বলেন, এই নদীর এক সময় যৌবন ছিল, নদী দিয়ে পালতোলা নৌকাসহ বিশাল জাহাজ চলাচল করতো, এই নদীর মাছ বিক্রি করে এক সময় জেলেদের সংসারের চাকা ঘুরত। অথচ আজ এই নদীর পানি এমন ভাবে পঁচে নষ্ট হয়েছে যে, এই পানিতে গরু-ছাগল পর্যন্ত ঝাঁপানো যায়না। নদীর পাশ দিয়ে হেটে গেলে পঁচা পানির দুর্গন্ধ নাকে আসে। ধামরাইয়ের কল-কারখানার বর্জ পানিতে ফেলে গাজীখালীকে মেরে ফেলেছে। আমরা এলাকাবাসী এর প্রতিকার চাই।

পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্য রক্ষার জন্য গাজীখালীকে দূষণ মুক্ত করা জরুরি হয়ে পড়েছে বলে মনে করেন স্থানীয় সচেতন মহল।

শেয়ার করুন:

আরো সংবাদ
© All rights reserved © janashokti

Developer Design Host BD