বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ১২:৫৭ অপরাহ্ন

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় যাকাতের অর্থ

জনশক্তি ডেক্স:
  • আপডেট সময়: শনিবার, ৪ মে, ২০২৪ ৩:১২ pm

যাকাত, সদকার টাকা দিয়ে জলবায়ু পরিবর্তনে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা করা যায় কিনা তা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। তবে ইন্দোনেশিয়ার উলামা কাউন্সিল চলতি একটি ফতোয়া জারি করে বলেছে, যাকাতের টাকা দিয়ে বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা করা যেতে পারে।

এছাড়া গাছ লাগানোর জন্য জমি বা অর্থ দেওয়া যেতে পারে বলেও জানিয়েছে উলামা কাউন্সিল।

উলামা পরিষদের পরিবেশ ও প্রাকৃতিক সম্পদ বিভাগের প্রধান হায়ু প্রাবোয়ো বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে বলেন, ‘আমরা আশা করছি মানুষ এখন জানবে যে, জলবায়ু পরিবর্তন যে বাস্তব—সে বিষয়ে আলেম-উলামারা একমত, এবং আমাদের ধর্মগ্রন্থ মানুষের ভবিষ্যৎ রক্ষায় সহায়তা করার শিক্ষা দেয়।’

বাংলাদেশের বরইকান্দি মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ও মানবাধিকারকর্মী মো. রিয়াজ উদ্দীন রয়টার্সকে বলেন, ‘ইসলামের দৃষ্টিতে ভালো মানুষ হওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ হলো, অন্য মানুষ ও পরিবেশের প্রতি ভালো আচরণ করা।’ তিনি বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে যারা মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে আছেন, তাদের সহায়তায় যাকাত, সদকার টাকা ব্যবহার করা যেতে পারে৷

বাংলাদেশের মানুষ সাধারণত যাকাতের টাকা দিয়ে গরিব আত্মীয়স্বজন ও মানুষদের সহায়তা করে থাকে। বেশিরভাগ সময় যাকাতের টাকা দিয়ে কাপড় কেনা হয়। এতে অসহায় মানুষদের দীর্ঘমেয়াদী লাভ হয় না বলে মনে করেন মো. রিয়াজ উদ্দীন৷

অথচ প্রতি বছর যে পরিমাণ টাকা দান করা হয়—তা ঠিকমতো সমন্বয় করে ব্যবহার করতে পারলে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে যারা ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছেন তাদের সহায়তা করা সম্ভব বলে মনে করেন জাকির এইচ খান। তিনি ঢাকার গবেষণা সংস্থা চেঞ্জ ইনিশিয়েটিভের প্রধান নির্বাহী। জলবায়ু কার্যক্রমের অর্থায়নে যাকাত, সদকার অর্থ ব্যবহারের সম্ভাবনা নিয়ে তিনি গবেষণা করছেন এই গবেষক কর্মকর্তা।

গত বছর প্রকাশিত এক গবেষণা বলছে, বাংলাদেশে যাকাত হিসেবে প্রতি বছর ৯ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার তোলা সম্ভব। আর গতমাসে পরিবেশমন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী জানিয়েছেন, জলবায়ু অভিযোজন অর্থাৎ জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়ার জন্য বাংলাদেশের বছরে প্রায় ৯ বিলিয়ন ডলার প্রয়োজন।

ওয়াটারএইড নামের একটি আন্তর্জাতিক সংস্থা ইতিমধ্যে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, মালির মতো দেশে লবণাক্ততার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ প্রকল্প শুরু করেছে। এই প্রকল্পের ব্যয় আসছে যাকাতের অর্থ থেকে।

সংস্থার বাংলাদেশ প্রধান হাসিন জাহান বলেন, ‘আমরা যুক্তরাজ্যের মতো দেশ থেকে যাকাতের মাধ্যমে অনেক অর্থ সংগ্রহ করি, যেটা দিয়ে জলবায়ু সংকটে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের সহায়তা করা হয়।’

বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের উপকূলীয় এলাকায় লবণাক্ততার কারণে বিশুদ্ধ খাবার পানির ব্যবস্থা করা কঠিন।

ঐসব এলাকার মেয়ে ও তরুণীদের প্রয়োজন মেটানোর চেষ্টা করছে ওয়াটারএইড। ‘স্কুলে লবণমুক্ত পানি পাওয়ায় আমরা খুশি৷ এছাড়া আমাদের বিনামূল্যে স্যানিটারি প্যাডও দেওয়া হয়’, বলেছেন ১৫ বছর বয়সি সুরাইয়া খাতুন।

শেয়ার করুন:

আরো সংবাদ
© All rights reserved © janashokti

Developer Design Host BD