বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:১১ পূর্বাহ্ন

সিঙ্গাইরে স্কুলের ল্যাপটপ চুরি: কর্তৃপক্ষের দায়সারা ভাব

জনশক্তি ডেক্স:
  • আপডেট সময়: শনিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২৩ ১০:৩৬ am

জসিম উদ্দিন সরকার, মানিকগঞ্জ: মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে সম্প্রতি একটি উচ্চবিদ্যালয়ে দূর্ধর্ষ চুরির ঘটেছে। কিন্তু এ বিষয়ে দায়সারা ভাব দেখাচ্ছে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস ও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ঘটনার প্রায় একমাস পার হলেও গঠন করা হয়নি তদন্ত কমিটি। তারা শুধু থানায় মামলা করেই দায়িত্ব সেরেছে।

এদিকে সীমানা প্রাচীর, গেইট এবং সিসি ক্যামেরা থাকা সত্বেও জনবহুল এলাকায় বিদ্যালয়ে চুরির ঘটনায় হতবাক শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও স্থানীয় সচেতন মানুষ। ঘটনার পর কর্তৃপক্ষের ভুমিকা নিয়েও চরম ক্ষুব্দ ও নেতিবাচক মন্তব্য করছেন তারা। স্বর্ষের মধ্যে ভূত আছে কিনা? সেটাও নিয়ে কানাঘুষা হচ্ছে।

গত ১ নভেম্বর বুধবার দিবাগত রাতে উপজেলার বলধারা ইউনিয়নের পারিলে নুর মহসিন বিদ্যায়তনের শেখ রাসেল ডিজিটাল মাল্টিমিডিয়ার ক্লাশ রুম থেকে ১৫টি ল্যাপটপ ও ১৬টি চার্জার চুরি হয়, যার মূল্য প্রায় ৯ লক্ষ টাকা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন ধরে কোন নৈশ প্রহরী নেই, চুরির ঘটনার আগে কিছুদিন এক প্রহরী কিছু দিন পাহারা দিলেও, তিনিও চলে যান। প্রহরী না থাকার সুযোগটি কাজে লাগান চোরচক্র। প্রহরী কেন নিয়োগ দেয়া হচ্ছে না, এবিষয়ে জানতে চাইলে শিক্ষা অফিসার এ বি এম আঃ হান্নান বলেন, প্রহরী নিয়োগের বিষয়ে নোটিশ দেয়া হয়েছে।

চুরির ঘটনার একদিন পর সিঙ্গাইর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুর রফিক।

এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার এ বি এম আব্দুল হান্নান বলেন, আমি স্কুলে গিয়েছি, খোঁজ খবর রাখছি। থানায় মামলা হয়েছে। তারা ব্যবস্থা গ্রহন করবেন। তদন্ত রিপোর্ট তৈরি করেছেন কিনা, জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, কোন তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়নি, আমি নিজে সেখানে গিয়ে দেখে এসেছি। খুব শীঘ্রই তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি করে জমা দেয়া হবে। তবে থানায় মামলা হয়েছে, ঘটনাটি তারা দেখবেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিঙ্গাইর থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) মানবেন্দ্র বালো জানান, চুরির ঘটনাটি রহস্যময়। মামলার তদন্ত চলছে। আশা করি দ্রুত রহস্য উদঘাটন হবে। অপরাধীরাও ধরা পরবে।

শেয়ার করুন:

আরো সংবাদ
© All rights reserved © janashokti

Developer Design Host BD